দেশের মানুষ পুষ্টিকর খাদ্য খেতে পারে না: কৃষিমন্ত্রী

প্রকাশিত: জানুয়ারী ২৫, ২০২৩, ১১:৫৬ দুপুর
আপডেট: জানুয়ারী ২৫, ২০২৩, ০২:৩৮ দুপুর
আমাদেরকে ফলো করুন

আমরা খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছি। এখন আমাদের চ্যালেঞ্জ, পুষ্টিকর খাদ্য নিশ্চিত করা। দেশের মানুষ পুষ্টিকর খেতে পারে না। তবে সবকিছুরই উৎপাদন বেড়েছে বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক।

আজ বুধবার (২৫ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ১০টায় ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত জেলা প্রশাসক (ডিসি) সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, দেশে অন্যান্য সময়ের তুলনায় কৃষি উৎপাদন চারগুণ বেড়েছে। বর্তমানে ধান, গম, ভুট্টাসহ ৪ কোটি ৭০ লাখ টন খাদ্য উৎপাদন করছি। স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে আমাদের খাদ্য উৎপাদন ছিল ১ কোটি ১০ লাখ টন, যা বর্তমানে চারগুণ বেড়েছে।

মন্ত্রী বলেন, আমরা খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছি। এখন আমাদের চ্যালেঞ্জ, পুষ্টিকর খাদ্য নিশ্চিত করা। দেশের মানুষ পুষ্টিকর খেতে পারে না। তবে সবকিছুরই উৎপাদন বেড়েছে।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, ২০০৭-২০০৮ সালে আমাদের সবজি উৎপাদন ছিল ৩ মিলিয়ন টন, যা এখন ২২ মিলিয়ন টন। সবজি উৎপাদন বেড়েছে সাতগুণ। কিন্তু মানুষের আয় না বাড়লে মানুষ এগুলো গ্রহণ করতে পারে না। এজন্য কৃষিকে গুরুত্ব দিচ্ছি, যেন কৃষকদের আয় বাড়ে। এ ক্ষেত্রে জেলা প্রশাসকদের সহযোগিতা চাই।

আব্দুর রাজ্জাক বলেন, কৃষি একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। অর্থনীতিতে কৃষির গুরুত্ব অপরিসীম। সবকিছু কৃষিকে ঘিরেই আবর্তিত হয়। মানুষের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে কৃষির অবদান সবসময়ই থাকবে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে তিনবার ক্ষমতায় এসেছি। জাতিকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম, খাদ্য উৎপাদন বাড়িয়ে খাদ্যের দাম কমানোর। আমরা এখন সেই চেষ্টা করছি।

মন্ত্রী আরও বলেন, কৃষি আর গরু-ছাগল দিয়ে হবে না, কৃষিকে বিজ্ঞানভিত্তিক করতে হবে। কৃষির আধুনিকায়নে বিজ্ঞানীদের এগিয়ে আসতে হবে।  আমরা কাজ করে যাচ্ছি, আমরা নতুন নতুন বীজ উৎপাদন করছি। আমাদের নতুন একটি ধান বীজ উৎপাদন করছি, যা থেকে বিঘাপ্রতি ৩০ থেকে ৩২ মণ ধান উৎপাদন সম্ভব।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়