সুজানগরে পাটের সুদিন ফিরে আসতে শুরু করেছে

প্রকাশিত: জুলাই ০৬, ২০২২, ০৮:১৯ রাত
আপডেট: জুলাই ০৬, ২০২২, ০৮:১৯ রাত
আমাদেরকে ফলো করুন

সুজানগর (পাবনা) প্রতিনিধি: এক সময়ে পাবনার সুজানগরের কৃষকদের প্রধান অর্থকরী ফসল ছিল পাট। ওই সময় উপজেলার মাঠে মাঠে কেবল পাট আর পাট শোভা পেতো। কিন্তু মাঝে পাট শিল্পের প্রতি উদাসীনতা এবং অব্যবস্থাপনার কারণে পাটের বাজারে ধস নামে। এতে উপজেলার কৃষকরা পাট আবাদে নিরুৎসাহী হয়ে পড়েন। কিন্তু বর্তমানে সোনালী আঁশ পাটের সুদিন ফিরে আসায় সর্বস্তরের কৃষক আবার পাট আবাদে ঝুঁকছেন।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, এ বছর উপজেলার ১০টি ইউনিয়নে পাট আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৮ হাজার ৫শ’ হেক্টর জমিতে। কিন্তু অনুকূল আবহাওয়ার কারণে আবাদ হয়েছে ৮ হাজার ৭শ’ হেক্টর জমিতে। অর্থাৎ লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে আবাদ হয়েছে ২শ’ হেক্টর বেশি জমিতে।

উপজেলার মানিকহাট গ্রামের পাটচাষি মন্টু খান বলেন, এ বছর অনুকূল আবহাওয়া আর সঠিক সময়ে সার-বিষ দেয়ার কারণে উপজেলার সর্বত্র পাট ভাল হয়েছে। আর ১০/১৫ দিন পরেই পাট কাটা এবং পচানো শুরু হবে। আশা করছি প্রতি বিঘা জমিতে ১০ থেকে ১২ মণ পাট উৎপাদন হবে। স্থানীয় হাট-বাজারে পাটের বাজারও বেশ ভাল। উপজেলার বোনকোলা গ্রামের পাটচাষি মাজেদুল হক বলেন, প্রতিবিঘা জমিতে পাট উৎপাদন করতে সার, বীজ এবং শ্রমিকসহ খরচ হয় ৭ থেকে ৮ হাজার টাকা। বর্তমানে উপজেলার হাট-বাজারে প্রতি মণ পুরাতন পাট বিক্রি হচ্ছে ২৫শ’ থেকে ২৬শ’ টাকা দরে। এ হিসাবে এক বিঘা জমির পাট বিক্রি করে কৃষকের আয় হচ্ছে উৎপাদন খরচের চেয়ে অনেক বেশি। এতে কৃষক ভীষণ খুশি।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ রাফিউল ইসলাম বলেন, পাটের বর্তমান বাজার বেশ ভাল। তবে ১৫/২০ দিন পরে হাট-বাজারে মৌসুমী নতুন পাট উঠলে দাম কিছুটা কমতে পারে।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়