বাংলাদেশকে অভিষ্ঠ লক্ষ্যে পৌঁছাতে বঙ্গবন্ধুর পথ অনুসরণ করতে হবে: নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত: জানুয়ারী ২৪, ২০২৩, ০৮:২৩ রাত
আপডেট: জানুয়ারী ২৪, ২০২৩, ০৮:২৩ রাত
আমাদেরকে ফলো করুন

বিরল (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহ্মুদ চৌধুরী বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর পথ অনুসরণ ও মুক্তিযুদ্ধকে লালন করলে বাংলাদেশ তার অভিষ্ঠ লক্ষ্যে পৌঁছে যাবে। বাংলাদেশ আজ পৃথিবীতে একটি উন্নয়নের রোল মডেল দেশ। আমরা উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হয়েছি। করোনাকালীন আমাদের প্রবৃদ্ধি নিচে নামেনি।

পৃথিবীর ৫০টি অর্থনীতি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ ৩৫তম অর্থনীতির দেশ। দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে মাত্র ২টি দেশ ৫০টি দেশের তালিকায় আছে। একটি বাংলাদেশ আর একটি ভারত। এটা আমাদের গর্ব। এই গর্বের জায়গা তৈরি করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ। আপনারা নৌকায় ভোট দিয়েছিলেন বলেই বাংলাদেশ পৃথিবীতে উন্নয়নের রোল মডেল হয়েছে এবং গর্ব করার মত একটি জায়গায় গেছে।

আপনারা নৌকায় ভোট দিয়েছিলেন বলেই পদ্মাসেতু ও মেট্রোরেল হয়েছে। নৌকায় ভোট দিয়েছিলেন বলেই কর্ণফুলি বঙ্গবন্ধু ট্যানেল, মাতারবাড়ী গভীর সমুদ্র বন্দর, পায়রা সমুদ্রবন্দর হয়েছে। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে গোটা বিশ্বে যখন প্রভাব পেড়েছে। তখন জনগণের পাশে না দাঁড়িয়ে মির্জা ফখরুল মিথ্যাচার করছে। এতিমের টাকা মেরে খাওয়া ২ নেতার পিছনে থেকে মির্জা ফখরুল বলে, দেশ নাকি রসাতলে চলে গেছে।

বাংলাদেশ এগিয়ে গেলে তাদের রক্তক্ষরণ হয়, রক্ত টগবগ করে, বাংলাদেশ এগিয়ে গেলে তাদের গা জ্বালা করে, পাকিস্তান যেখানে পড়ে যাচ্ছে, বাংলাদেশ কেন এগিয়ে যাবে। এই হলো তাদের চিন্তা ভাবনা। তিনি বলেন, এই সেই মির্জা ফখরুল, যার বাবা একজন রাজাকার ছিলেন। যাকে ঠাকুরগাঁও এর মানুষ চোখা মিয়া হিসেবে জানতো। দেশ স্বাধীনের পর ১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্ট পর্যন্ত সে বাড়ি থেকে বের হয়নি।

স্বাধীনতা বিরোধীরা ৭৫ এর ১৫ আগস্ট যখন বঙ্গবন্ধুকে স্বপিরবারে হত্যা করে, তখন এই মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের পরিবার ঠাকুরগাঁওয়ে উল্লাস নৃত্য করেছিল। তারই রক্তের উত্তারাধীকারী এই মির্জা ফখরুল এর থেকে আর ভালো কিছু বলতে পারে না। তাদের দায়িত্বই হচ্ছে জঙ্গীবাদ-সন্ত্রাসবাদ তৈরি করে বাংলাদেশকে ধ্বংস করে দেয়া। হাওয়া ভবন ও খাম্বাতন্ত্র তৈরি করে দেশের সম্পদ লুণ্ঠন করা। এদের বিরুদ্ধে যে কোন পরিস্থিতিতে আমাদের ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।

আজ মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) সকালে দিনাজপুরের বিরল উপজেলা পরিষদের হলরুমে উপজেলা ট্যাক্সফোর্স কমিটির (‘ক’ শ্রেণীর ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত ঘোষণার নিমিত্ত) সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার আফছানা কাওছারের সভাপতিত্বে ও উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা আনিছুর রহমানের সঞ্চালোনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) আব্দুল ওয়াজেদ।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান একেএম মোস্তাফিজুর রহমান বাবু, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র সবুজার সিদ্দিক সাগর, সাধারণ সম্পাদক রমাকান্ত রায়, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের সদস্য মোশারফ হোসেন এবং উপজেলা প্রকৌশলী আনোয়ার হোসেন।

একই সাথে প্রধান অতিথি ২০২২-২৩ অর্থবছরের ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষাবৃত্তি ও ছাত্রীদের মাঝে বাইসাইকেল বিতরণ, কৃষি উপকরণ বিতরণ, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিরাপত্তায় নিয়োজিত আনসার সদস্যদের ব্র্যাক উদ্বোধন, ইউজিডিপি প্রকল্পের আওতায় ১৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উচু নিচু বেঞ্চ বিতরণ এবং গোপালপুর, নোনাগ্রাম, আকরগ্রাম, রঘুনাথপুর, উত্তর বিষ্ণুপুর, দুলহরি, শীবপুর, খৈলতৈড়, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সিঙ্গুল হামিদ হামিদা উচ্চ বিদ্যালয় মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি যাদুঘর, কাজিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি যাদুঘরের উদ্বোধন, ৬নং ভান্ডারা ও ২নং ফরক্কাবাদ ইউপি ভূমি অফিসের নবনির্মিত ভবন উদ্বোধন, উপজেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের আইজিএ ২য় পর্যায় প্রকল্পের প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে চেক ও সনদপত্র বিতরণ এবং উপজেলা মডেল মসজিদের কনফারেন্স রুমে উপজেলার বিভিন্ন মসজিদের ইমামদের মাঝে শীত বস্ত্র (কম্বল) বিতরণ করেন।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়