আদমদীঘিতে গভীর নলকুপ স্কীমে শান্তি ভঙ্গের আশংকায় মামলা

তদন্তের নির্দেশ

প্রকাশিত: জানুয়ারী ২৫, ২০২৩, ১০:৪২ রাত
আপডেট: জানুয়ারী ২৫, ২০২৩, ১০:৪২ রাত
আমাদেরকে ফলো করুন

আদমদীঘি (বগুড়া) প্রতিনিধি: আদমদীঘিতে একটি গভীর নলকুপ স্কীমে প্রতিপক্ষরা জোড়পূর্বক দখল, ঘরের তালা ভাঙ্গা ও সেচ কাজে বাধা সৃষ্টি করে শান্তি ভঙ্গের আশংকায় আদালতে মামলা করা হয়েছে। গত ১৯ জানুয়ারি আদমদীঘির ডহরপুর গ্রামের গভীর নলকুপ স্কীমের সভাপতি আব্দুল হামিদ বাদি হয়ে বগুড়ার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একই গ্রামের আব্দুল কুদ্দুছ খান ও আবু হাসানসহ ৫জন জনকে প্রতিপক্ষ করে এই মামলা দায়ের করেন।

আদালত গত ২৩ জানুয়ারি শুনানী শেষে বাদির আনীত অভিযোগ তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আদমদীঘি সহকারি কমিশনার (ভূমি)কে ও বর্ণিত নালিশী সম্পত্তিতে শান্তি শৃংখলা বজায় রাখতে আদমদীঘির ওসিকে নির্দেশ প্রদান করেন। মামলা সূত্রে জানা যায়, আদমদীঘির ডহরপুর গ্রামে ১৯৮৫ সাল থেকে কৃষক সমবায় সমিতির মাধ্যমে ২৪০ বিঘা জমিতে পানি সেচের জন্য একটি গভীর নলকুপ স্থাপন করে চাষাবাদ করা হয়।

বর্তমানে গভীর নলকুপটি সভাপতি আব্দুল হামিদ ও ম্যানেজার আব্দুল জোব্বার সমন্বয়ে ২০ সদস্যের একটি কমিটি পরিচালনা করে আসছে। কিন্তু একই গ্রামের প্রতিপক্ষ আব্দুল কুদ্দুছ খান, উজ্জল হোসেন, মোফাজ্জল হোসেন, আব্দুল হান্নান ও আবু হাসান উক্ত গভীর নলকূপ স্ক্রীমে সাবমারসিবল পাম্প বসিয়ে বিঘ্ন সৃষ্টি করছে। এতে বাদি ও তার কমিটি বাধা প্রদান করলে প্রতিপক্ষরা ক্ষিপ্ত হয়ে ওই গভীর নলকুপ বন্ধ, ঘরের তালা ভাঙ্গা, নতুন তালা লাগানোসহ খুনজখম করবে বলেও তারা হুমকি দেয়।

এতে চলতি ২৪০ বিঘার জমির ইরিবোরো স্ক্রীমে সেচে বাধাগ্রস্থ হতে পারে বলে আশংকা বোধ করায় ১৪৪/ ১৪৫ ধারামতে আদালতে এই মামলা দায়ের করেন বলে বাদি আব্দুল হামিদ জানান। প্রতিপক্ষ আব্দুল কুদ্দুছ খান বাদির অভিযোগ অস্বীকার করেন।

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়