সাইবার নিরাপত্তায় ৪টি বিষয়ে মানার পরমার্শ

প্রকাশিত: অক্টোবর ০১, ২০২২, ০২:৪০ দুপুর
আপডেট: অক্টোবর ০১, ২০২২, ০২:৪০ দুপুর
আমাদেরকে ফলো করুন

নিরাপদ অনলাইন কঠিন তো নয়, সতর্ক থাকলেই হয়- এই প্রতিপাদ্যে সারাদেশে সপ্তম সাইবার নিরাপত্তা সচেতনতা মাস হিসেবে অক্টোবর মাসকে ঘোষণা করা হয়েছে।আইডিতে বহুস্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা, শক্তিশালী পাসওয়ার্ড, নিয়মিত সফটওয়্যার হালনাগাদ ও ফিশিং চেনার উপায়- এই চারটি বিষয় মেনে চললে অনলাইনে ব্যবহারকারী নিজেই অনলাইনে নিজের নিরাপত্তা বলয় তৈরি করতে পারবেন বলে জানিয়েছেন সাইবার ক্রাইম অ্যাওয়ারনেস ফাউন্ডেশনের ইঞ্জিনিয়ার মুশফিকুর রহমান।

শুক্রবার (৩০ সেপ্টেম্বর) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সাইবার নিরাপত্তা সচেতনতা মাস বিষয়ক জাতীয় কমিটির সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান তিনি।মোবাইল ফোন অপারেটর রবি এবং প্রযুক্তি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান সাইবার প্যারাডাইজের পৃষ্ঠপোষকতায় এ কর্মসূচি বাস্তবায়ন হচ্ছে।

সাইবার ক্রাইম অ্যাওয়ারনেস ফাউন্ডেশনের উপদেষ্টা ইঞ্জিনিয়ার মুশফিকুর রহমান বলেন, ফিশিং সম্পর্কে ইঞ্জিনিয়ার মুশফিকুর রহমান বলেন, মানুষের মনকে নিয়ন্ত্রণ করে ম্যানুপুলেট করা। এর মাধ্যমে সোস্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের মাধ্যমে হয়তো টাকা কিংবা সম্পর্ক তৈরির প্রলোভনে কোনো সাইটে ক্লিক করার মাধ্যমে তাকে অনিরাপদ ওয়েবসাইটে নিয়ে যায়। ফলে ব্যক্তির তথ্য হাতিয়ে নেয় অথবা টাকা আদায় করে নিতে পারে প্রলোভন দেখিয়ে।

শিশুদের নিরাপদ ইন্টারনেট নিয়ে তিনি বলেন, বাচ্চাকে ট্যাপ না দিয়ে বই দিন। বাচ্চারা নিরাপদ থাকবে সাইবার স্পেসে। প্রত্যেকটা আইএসপি থেকে প্যারেন্টিং কন্ট্রোল নিতে পারেন, তাহলে অনাকাঙ্ক্ষিত সাইটে পৌঁছাতে পারবে না।

তিনি আরও বলেন, অক্টোবরের প্রতি সপ্তাহে আলাদা একটি করে চারটি বিষয়ে কর্মসূচি হবে। প্রথম সপ্তাহ মাল্টি-ফ্যাক্টর অথেন্টিকেশন চালু করুন, দ্বিতীয় সপ্তাহ শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন, তৃতীয় সপ্তাহ আপনার সফ্টওয়্যার আপডেট করুন এবং চতুর্থ সপ্তাহ ডিপিং চিনুন এবং রিপোর্ট করুন।

রবির সাইবার সিকিউটি অ্যান্ড প্রাইভেসি বিভাগের ভাইস প্রেসিডেন্ট সঞ্জয় চক্রবর্তী বলেন, ইন্টারনেট ব্যবহারের ভালো দিকও আছে, তেমন খারাপ দিকও আছে। সেজন্য দেখে শুনে নিরাপত্তা নিয়ে ইন্টারনেট চালাতে হবে।  

আইএসপিএবির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম বাশির বলেন, সাইবার সিকিউরিটির জন্যে সবচেয়ে বড় প্রয়োজন নিজের মধ্যে সচেতনতা তৈরি করা। প্রত্যেক লিংকে ক্লিক করার আগে বুঝে শুনে ক্লিক করা উচিত। তাহলে নিরাপদ থাকা যাবে।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, মাসব্যাপী ক্যাম ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে সচেতনতার বার্তা সারাদেশে পৌঁছে দিতে যেকোনো ব্যক্তি-সংগঠনকে এই কর্মসূচিতে যুক্ত করার উদ্যেগ নিয়েছে ক্যাম জাতীয় কমিটি।  

তৃণমূল ছাড়াও জাতীয় পর্যায়ে কর্মসূচির মধ্যে সারাদেশে এসএমএস ক্যাম্পেইন, ৬৪ জেলা থেকে শতাধিক তরুণ-তরুণীকে ঢাকায় এনে কর্মশালার আয়োজন, সাইবার সুরক্ষা বিষয়ক আলোচনা সভা, প্রতি সপ্তাহে বিশিষ্টজনদের নিয়ে বিষয়ভিত্তিক ওয়েবনার ডিজিটাল পোস্টার ডিজাইন প্রতিযোগিতা ও স্যোশাল মিডিয়ায় মাসব্যাপী ক্যাম্পেইন।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন ক্যাম জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব ব্যারিস্টার রাশনা ইমাম ও ক্যাম জাতীয় কমিটির সমন্বয়ক কাজী মুস্তাফিজ।  

মন্তব্য করুন

খবরের বিষয়বস্তুর সঙ্গে মিল আছে এবং আপত্তিজনক নয়- এমন মন্তব্যই প্রদর্শিত হবে। মন্তব্যগুলো পাঠকের নিজস্ব মতামত, দৈনিক করতোয়া এর দায়ভার নেবে না।

জনপ্রিয়